করোনা: টিকার একডোজে গুরুতর অসুস্থতার ঝুঁকি ৮০ ভাগ কমে

নিউজ ডেস্ক ঃ  করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা আশি ভাগ কমিয়ে দিয়েছে অক্সফোর্ড-অস্ট্রাজেনেকা কিংবা ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকার একটি ডোজ।

জনস্বাস্থ্য ইংল্যান্ডের একটি বিশ্লেষণের বরাতে বিবিসি এমন খবর দিয়েছে।


এতে দেখা গেছে, টিকা দেওয়ার তিন থেকে চার সপ্তাহ পরে এই প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। আশি বছরের বেশি বয়সীদের ওপর জরিপটি চালানো হয়েছে। দেশটিতে তারাই প্রথম টিকা গ্রহণ করেছেন।

গবেষণার এই ফলকে স্বাগত জানিয়েছেন সরকারি বিজ্ঞানীরা। করোনা থেকে সবচেয়ে ভালো সুরক্ষার জন্য টিকার দুটি ডোজ নেওয়ার ওপরই জোর দিয়েছেন তারা।

গত সপ্তাহে স্কটিশ স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের প্রকাশিত প্রতিবেদনেও একই ধরনের তথ্য-উপাত্ত মিলেছে। এটিকে অসাধারণ বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

সোমবার ডাউনিং স্ট্রিটে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হনকক বলেন, টিকা দেওয়ার ফল জোরালোভাবেই প্রতিফলিত হয়েছে। যুক্তরাজ্যে আশি বছরের বেশি বয়সীদের মধ্যে আইসিইউতে ভর্তি হওয়ার সংখ্যা কেন কমে গেছে—নতুন এই উপাত্ত থেকে সেই ব্যাখ্যা পাওয়া যাবে।

ওই সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাজ্যের উপপ্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জোনাথন ভন ট্যাম বলেন, টিকা কর্মসূচি নিয়ে পরিচালিত ওই গবেষণায় আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে আগামী কয়েক মাসে আমরা অন্য রকম বিশ্ব পাব।

করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষার জন্য দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেওয়াও যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

ভন ট্যাম বলেন, টিকার দ্বিতীয় ডোজ রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা শক্তিশালী করে। দ্বিতীয় ডোজ নিলে রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা দীর্ঘমেয়াদি থাকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here