ট্রাম্প ভয়াবহ পরিকল্পনা করেছিলেন শেষ দিন

Official portrait of President Donald J. Trump, Friday, October 6, 2017. (Official White House photo by Shealah Craighead)

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃহোয়াইট হাউসের শেষ দিনগুলোয় ভয়াবহ সব পরিকল্পনা করেছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিউইয়র্ক টাইমস স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার এক প্রতিবেদনে বলছে, ট্রাম্প বিচার বিভাগের এক কর্মকর্তার সঙ্গে সংবিধানবিরোধী কার্যক্রম নিয়ে পরামর্শ করেছিলেন।ভারপ্রাপ্ত অ্যাটর্নি জেনারেলকে বরখাস্ত করে বিচার বিভাগের মাধ্যমে জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের ভোটের ফলাফল পাল্টে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করছিলেন ট্রাম্প।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের খবর বলছে, নির্বাচনের ফলাফল বদলে দিতে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের ওপর চাপ দিয়েছেন ট্রাম্প।সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী ক্রিস্টোফার মিলার ভ্যানেটি ফেয়ার সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, গত নভেম্বর মাসে দায়িত্ব নেওয়ার পরই তিনি তিনটি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। পেন্টাগন ও বিচার বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, কোনো সামরিক ক্যু নয়। কোনো যুদ্ধে যাওয়া যাবে না এবং যুক্তরাষ্ট্রের রাজপথে কোনো সেনাবাহিনী থাকবে না।৬ জানুয়ারি ট্রাম্পের আহ্বানে ক্যাপিটল হলে হামলার পর থেকেই পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে। এ ঘটনার পরে কংগ্রেস ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় দফা অভিশংসন প্রস্তাব গ্রহণ করে। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন বিচার মার্কিন সিনেটে ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে শুরু হবে। এ নিয়ে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। অভিশংসন বিচারে শাস্তি হলে ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০২৪ সালের নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না।পেন্টাগন ও বিচার বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, কোনো সামরিক ক্যু নয়। কোনো যুদ্ধে যাওয়া যাবে না এবং যুক্তরাষ্ট্রের রাজপথে কোনো সেনাবাহিনী থাকবে না।
সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন দণ্ডের জন্য ১৭ জন রিপাবলিকানের সমর্থন পাওয়াও নিশ্চিত নয়। ক্রিস্টোফার মিলার তাঁর সাক্ষাৎকারে বলেছেন, পরিস্থিতির ওপর বিচার বিভাগ ও প্রতিরক্ষা বিভাগ থেকে অব্যাহত নজর রাখা হচ্ছিল। সভার পর সভা চলছিল। ক্যাপিটল হিলের পরিস্থিতি নাজুক হওয়ার আগেই ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়ে রাখা হয়েছিল।
জর্জিয়ার রিপাবলিকান গভর্নর ব্রায়ান ক্যাম্প এবং সেক্রেটারি অব স্টেট ব্র্যাড রাফেনস্পার্জার ট্রাম্পের প্রচণ্ড চাপে ছিলেন।
পেন্টাগনে ট্রাম্পকে নিয়োগকারী কর্মকর্তা এরজা কোহেন ভ্যানেটি ফেয়ারকে বলেছেন, ‘ট্রাম্প আমাদের বিরূপ পরিস্থিতিতে ঠেলে দিয়েছিলেন।’ কেবল রাজনৈতিকভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নয়, অন্যদেরও ট্রাম্প নাজুক বাস্তবতায় ফেলেছিলেন বলে ট্রাম্প মনোনীত এই কর্মকর্তা উল্লেখ করেন।ট্রাম্প এখন ফ্লোরিডার পাম বিচে রয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে কংগ্রেসে দ্বিতীয় দফা গৃহীত অভিশংসন বিচারের প্রস্তুতি চলছে। নীরবেই এই অভিশংসন দণ্ড থেকে মুক্তি পাওয়ার চেষ্টা করছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here